IMG-LOGO
বাড়ি প্রথম পৃষ্ঠা ভরদুপুরে নীল গাড়িতে নন্দীগ্রামে ভোট পরিদর্শনে তৃণমূলনেত্রী
প্রথম পৃষ্ঠা

ভরদুপুরে নীল গাড়িতে নন্দীগ্রামে ভোট পরিদর্শনে তৃণমূলনেত্রী

by Admin - 2021-04-01 10:48:08 1 Views 0 Comment
IMG


কলকাতা, ১ এপ্রিল  : প্রথমার্ধে ঘরবন্দি থাকার পর নন্দীগ্রামে ভোট পরিদর্শনে বেরোলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দ্বিতীয় দফায় রাজনৈাতিক মহলের কেন্দ্রে রয়েছে নন্দীগ্রাম। নন্দীগ্রাম দখলে দ্বৈরথ চলছে তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বনাম বিজেপি নেতা তথা মমতার প্রাক্তন সহযোগী শুভেন্দু অধিকারীর। তবে পূর্ব মেদিনীপুরের ওই আসনে ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার ঘণ্টা দু’য়েকের মধ্যে এক বিজেপি কর্মীর অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে উত্তেজনা ছড়িয়েছে। এছাড়া, বিক্ষিপ্ত অশান্তি দেখা গিয়েছে কেশপুর, ডেবরা, সবং এবং দাসপুরের মতো জায়গাতেও।
ভোটের জন্য সেখানকার রেয়াপাড়ায় একটি বাড়িতে অস্থায়ী ভাবে রয়েছেন তৃণমূল নেত্রী। ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পর এদিন সকাল থেকে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী শুভেন্দু অধিকারী বুথে বুথে ঘুরলেও, একবারও দেখা মেলেনি মমতার। তবে, বিভিন্ন সূত্রে খবর পাচ্ছিলেন। প্রয়োজনীয় নির্দেশও দিচ্ছিলেন। বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে নন্দীগ্রামের ইতিউতি বিক্ষিপ্ত অশান্তি দেখা দিলে, দুপুরে রেয়াপাড়ার ওই বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসেন তিনি। দেহরক্ষীদের সহায়তায়, হুইলচেয়ার থেকে নীল রঙের গাড়িতে উঠে বেরিয়ে যান।

এদিন দুপুর সওয়া ১ টা নাগাদ রেয়াপাড়ার বাড়ি থেকে বেরিয়ে প্রথমে বয়াল ১ নম্বর পঞ্চায়েতের ৭ নম্বর বুথে যান তৃণমূল নেত্রী। হুইলচেয়ারে বসেই সেখানে গ্রামের মধ্যে ঢুকে যান তিনি।  সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলেন। কেন্দ্রীয় বাহিনী ভোট দিতে বাধা দিচ্ছে, মারধর করছে বলে তাঁকে জানান স্থানীয় ভোটাররা। মমতার কাছে পুনর্নির্বাচনের দাবি জানান সকলে।

বয়াল, গোকুলনগর, সোনাচূড়া নিয়ে সকাল থেকেই নানা অভিযোগ সামনে আসছিল। তৃণমূলের অভিযোগ, সেখানকার বুথে তৃণমূল এজেন্টকে বসতে দেওয়া হয়নি। অবাধে ছাপ্পা ভোট করেছে বিজেপি। বিষয়টি নিয়ে মমতার কাছে অভিযোগ জানান বয়ালের বাসিন্দারাও।

সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অনেক ভোটই পার করেছেন মমতা। তবে সব ভোটেই তাঁকে দিনের বড় সময়টা গৃহবন্দি থাকতে দেখা গিয়েছে।  কলকাতা পুরসভা হোক বা লোকসভা নির্বাচন সব ক্ষেত্রেই বরাবর ঘরে বসে ভোটদানে নজর রাখতে দেখা গিয়েছে তৃণমূল নেত্রীকে। ঘনিষ্ঠরা জানেন, কালীঘাটের বাড়ি থেকেই তিনি সব দিকে নজর রাখেন। ফোনে খোঁজ নেন কোথায় কী হচ্ছে। নন্দীগ্রামে এককালের সতীর্থ শুভেন্দুর বিরুদ্ধে লড়াইয়েও সেই ছক বদলালেন না মমতা।